পোস্ট অফিসের ধামাকা স্কিম:সন্তানের জন্য সামান্য টাকা জমালেই কয়েক বছর পরে পাবেন মোটা টাকা !

আজকাল কন্যাসন্তাদের জন্য একাধিক স্কিম রয়েছে বিনিয়োগের জন্য ৷ এই সমস্ত স্কিমে বিনিয়োগ করে রাখলে ভবিষ্যতে কন্যাসন্তানের পড়াশোনা ও অন্যান্য খরচের জন্য আর চিন্তা থাকবে না ৷ মেয়ে বড় হলে একথোকে নগদ টাকা হাতে পেলে তার লাভ বই লোকসান তো আর নেই! কেন্দ্র সরকারের একাধিক প্রকল্প রয়েছে যেখানে মোটা টাকা সুদও পাওয়া যাবে সঙ্গে মিলবে ট্যাক্স ছাড় ৷আপনি কি বিনিয়োগ করার কথা ভাবছেন ? তাহলে পোস্ট অফিসের এরকম ৮টি স্কিম রেয়েছে ৷

পোস্ট অফিস সেভিং অ্যাকাউন্ট (Post Office Savings Account) – পোস্ট অফিস সেভিংস অ্যাকাউন্টে ৪ শতাংশ হারে সুদ পাওয়া যায়। যাঁদের মেয়ের বয়স ১০ বছরের নিচে, তাঁরা এই সেভিংস অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। এখানে সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা বিনিয়োগ করা যেতে পারে। এই অ্যাকাউন্টে বিনিয়োগ করার কোনও সর্বোচ্চ সীমা নেই। যে যত টাকা খুশি, এই স্কিমে বিনিয়োগ করতে পারেন। এই অ্যাকাউন্টে সবসময় ৫০ টাকা মিনিমাম ব্যালেন্স রাখা প্রয়োজন এবং এই অ্যাকাউন্ট থেকে যে কোনও সময় টাকা তোলা যায়।

রেকারিং ডিপোজিট (RD) – কন্যাসন্তানের জন্য এটি একটি অন্যতম ভাল স্কিম। প্রতি মাসে এই স্কিমে কম টাকা বিনিয়োগ করা যায়। ৫ বছরের জন্য এই স্কিমে বিনিয়োগ করা যায়। এই স্কিমে প্রতি বছরে ৫.৮ শতাংশ হারে সুদ দেওয়া হয়। এই স্কিমে ন্যূনতম ১০০ টাকা বিনিয়োগ করতে হয়। এই স্কিমের সময় শেষ হওয়ার পরেই টাকা তোলা যায়।

সুকন্যা সমৃদ্ধি যোজনা (Sukanya Samriddhi Yojana) – কন্যাসন্তানের জন্য এটি একটি খুবই জনপ্রিয় স্কিম। এই স্কিমে ৭.৬ শতাংশ হারে সুদ পাওয়া যায়। এই স্কিমে ন্যূনতম ১০০০ টাকা বিনিয়োগ করতে হয় এবং সর্বোচ্চ ১.৫ লাখ টাকা বিনিয়োগ করা যায়। মেয়ের বয়স ১৮ বছর না হলে এই টাকা তোলা যায় না। সন্তানের বয়স ২১ বছর হলে এই স্কিমের টাকা ম্যাচিওর করে।

পোস্ট অফিস টাইম ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট (Post Office Time Deposit Account) – এই স্কিমে ন্যূনতম ১০০০ টাকা বিনিয়োগ করতে হয়। এই স্কিমে কন্যাসন্তানের অভিভাবকেরা ভাল রিটার্ন পাওয়ার জন্য ইনভেস্ট করতে পারেন। বিনিয়োগকারীরা এই স্কিমের সুদ ৫ বছরের জন্য রেকারিং ডিপোজিট স্কিমে বিনিয়োগ করতে পারেন। এই স্কিমে বিভিন্ন ধরনের সুবিধা পাওয়া যায়। এই সুবিধা পাওয়ার জন্য অভিভাবকদের ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন ফাইল করতে হয়।

পোস্ট অফিস মাসিক ইনকাম স্কিম (Post Office Monthly Income Scheme) এই স্কিমে বার্ষিক ৬.৬ শতাংশ হারে সুদ পাওয়া যায়। এই স্কিমের সময়সীমা ৫ বছর। এই স্কিমে ন্যূনতম ১০০০ টাকা বিনিয়োগ করতে হয় এবং সর্বোচ্চ ৪.৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ করা যায় না। বিনিয়োগকারীরা ১ বছর পরেই স্কিম থেকে টাকা তুলতে পারেন।