গ্রামে গ্রামে ঝুড়ি বিক্রি করতেন,কঠোর পরিশ্রমে যা করে দেখালেন, স্যালুট নেটিজেনদের

লোকেরা প্রায়শই তাদের সাফল্যের অভাবকে ভাগ্য বা তাদের সাথে ঘটে যাওয়া কোনও বড় দুর্ঘটনাকে দায়ী করে। দুর্ভাগ্য ও খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে দিয়েও মানুষের মাঝে নিজের পরিচয় তৈরি করাই আসল সফলতা। এমনই এক উদাহরণ হয়ে বিশ্বের সামনে এসেছেন কেরালার বাসিন্দা মহম্মদ আলি শিহাব। শিহাবের গল্প তরুণদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস, বিশেষ করে সেই সব ছাত্রছাত্রীদের জন্য যারা সব সুযোগ-সুবিধা থাকা সত্ত্বেও পড়াশোনা থেকে পালিয়ে বেড়ায়।

কেরালার মল্লাপুরম জেলার এদাভান্নাপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণকারী মোহাম্মদ আলী শিহাব বর্তমানে একজন আইএএস অফিসার। শিহাবের ঘরে দারিদ্র্যের অভিশাপ নিয়ে জন্ম হয়। বাড়ির অর্থনৈতিক অবস্থা এতটাই দুর্বল ছিল যে অল্প বয়সেই বাবার সঙ্গে আরও পাঁচটি বাঁশের ঝুড়ি বিক্রি করতে হয়েছিল। এই ছোটখাটো কাজ করেই কোনোরকমে বাড়ির জীবিকা নির্বাহ হতো। কিন্তু ১৯৯১ সালে দীর্ঘ অসুস্থতার পর পৃথিবী ছেড়ে চলে যান শিহাবের বাবা।

দারিদ্রের জন্য মা তাকে অনাথালয়ে পাঠিয়ে দেয়

বাবার ছায়া মাথা থেকে ওঠার পর শিহাবের ছোট কাঁধে একটা বড় দায়িত্ব এসে পড়ে। শিহাবের মা শিক্ষিত ছিলেন না, এমন কোনো কাজও পাননি যাতে তিনি তার সন্তানদের দেখাশোনা করতে পারেন। দারিদ্র্যের কারণে শিহাবকে অনাথালয়ে রেখেছিলেন মা। সেখানে তিনি অন্য বাচ্চাদের সাথে পেট ভরে খাবার পেতেন। অনাথালয় প্রসঙ্গে শিহাব বলেন, অনাথালয় তার কাছে আশীর্বাদের চেয়ে কম নয়। অনাথালয়ে থাকার সময় শিহাবের মনোযোগ পড়াশুনার দিকে যায় এবং সেও সব বাচ্চাদের থেকে মেধাবী ছিল।

21টি সরকারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ

অনাথ বাচ্চাদের নিয়ে লেখাপড়া করে শিহাব, ১০ বছর এই অনাথালয়ে থেকেছেন। শিহাব পড়ায় এতটাই তীক্ষ্ণ যে সবার আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। শিহাব বলেন, অনাথালয় থেকে তিনি যে শৃঙ্খলা পেয়েছিলেন তা তাকে জীবন সাজাতে অনেক সাহায্য করে। উচ্চশিক্ষার জন্য শিহাবের টাকার প্রয়োজন ছিল। এ জন্য তিনি সরকারি এজেন্সি পরীক্ষার প্রস্তুতি নেন। আশ্চর্যের বিষয় হল তিনি বিভিন্ন সরকারী সংস্থা দ্বারা পরিচালিত 21টি পরীক্ষায়ও উত্তীর্ণ হয়েছেন। এ সময় তিনি বন বিভাগ, জেল ওয়ার্ডেন এবং রেলওয়ে টিকিট পরীক্ষকের মতো পদেও কাজ করেন। মাত্র ২৫ বছর বয়সে তিনি প্রথমবারের মতো সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা দেন।

IAS অফিসার হয়েছেন

UPSC সাফল্যের গল্পটিও অসুবিধায় পূর্ণ ছিল। UPSC সিভিল সার্ভিসেস পরীক্ষার প্রথম দুটি প্রচেষ্টায়, শিহাব শুধুমাত্র ব্যর্থতার সম্মুখীন হয়েছিল। কিন্তু তিনি সাহস হারাননি এবং চেষ্টা চালিয়ে যান। অবশেষে বছর এল যখন দরিদ্র পান বিক্রেতা বাবা ও অসহায় মায়ের ছেলে তার স্বপ্ন পূরণ করতে পেরেছে। শিহাব 2011 সালে তার তৃতীয় প্রচেষ্টায় UPSC পরীক্ষা পাস করেছিল। এখানে তিনি সর্বভারতীয় 226 তম স্থান পেয়েছেন। ইংরেজিতে তেমন ভালো না হওয়ার কারণে, শিহাবের সাক্ষাৎকারের সময় একজন অনুবাদকের প্রয়োজন ছিল, তারপরে তিনি 300 নম্বরের মধ্যে 201 নম্বর পেয়েছিলেন।